উইন্ডোজ ১১ এর সেরা কিছু গোপন ফিচারগুলো জেনে নিন

আমি উইন্ডোজ ১১ ব্যবহার করে খুব ভালো মানের সেবা পেয়ে আসছি। এখানে রয়েছে অসংখ্য সেরা কিছু ফিউচার। যা আপনার কাজকে সহজ ও সাবলীল করে তুলবে। উইন্ডোজ ১০ এর চেয়ে উইন্ডোজ ১১ আরও দ্রুত গতি সম্পন্ন কাজ করে থাকে। এবং সকল ধরনের ঝামেলা মুক্ত রয়েছে এই ফিউচারটিতে। তার মধ্যে আমি সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব তুলে ধরবো।

আমি এই লেখাটির মাধ্যমে উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব বিস্তারিতভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব। তাই অবশ্যই এই লেখাটি আপনি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন৷ আপনি নীচের সূচিপত্রটি দেখুন। আপনি যে বিষয়টি পড়তে চাচ্ছেন তার উপরে চাপ দিন তাহলেই সেখানে পড়তে পারবেন।

Table of Contents

পোষ্ট সূচীপত্রঃ উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব যা আপনি জানলে ব্যবহার করতে চাইবেন

  • ভূমিকা
  • নতুন স্টার্ট মেনু
  • নতুন অ্যাকশন সেন্টার
  • ইউনিভার্সাল মিডিয়া কন্ট্রোল
  • আধুনিক ফাইল এক্সপ্লোরার
  • নতুন মাইক্রোসফট স্টোর
  • উইন্ডোজ ১১-এ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস সাপোর্ট
  • পুনরায় ডিজাইন করা সেটিংস অ্যাপ
  • দ্রুত উইন্ডোজ আপডেট
  • স্ন্যাপ লেআউট এবং অন্যান্য নতুন মাল্টিটাস্কিং বৈশিষ্ট্য
  • উইন্ডোজ ১১ উইজেট
  • নতুন কনটেক্স মেনু এবং গোলাকার কোণ
  • টিম চ্যাট ইন্টিগ্রেশন
  • নতুন আপনার ফোন অ্যাপ
  • নতুন এমএস পেইন্ট, ফটো, এমএস অফিস, মিডিয়া প্লেয়ার
  • ফোকাস সেশন
  • ভয়েস টাইপিং
  • উন্নত অঙ্গভঙ্গি নিয়ন্ত্রণ
  • নতুন ন্যূনতম লক স্ক্রীন
  • নতুন ওয়ালপেপার এবং শব্দ
  • আকস্মিক অ্যানিমেশন
  • টার্চ কীবোর্ড সুবিধা
  • অটো এইচডিআর এবং শক্তিশালী রিফ্রেশ রেট
  • ক্লিপবোর্ড সিঙ্কিং
  • স্ক্রীন টাইম এবং ব্যাটারি ব্যবহার
  • ARM এমুলেশন
  • উপসংহার

ভূমিকা

উইন্ডোজ ১১, ৫ই অক্টোবর ২০২১ শে মুক্তি পেয়েছে। উইন্ডোজ ১১, মুক্তি পাওয়ার পর থেকে অনেক উইন্ডোজ ১০ ইউজাররা আপডেট ফিচার ব্যবহার করে উইন্ডোজ ১১,হালনাগাদ করতে পারছে। মাইক্রোসফ্ট উইন্ডোজ ১১ ঘোষণা করার পরে, এটি বিল্ড ২২০০০.৫১ এবং ২২০০০.১০০ সহ কিছু প্রধান উইন্ডোজ ১১ পূর্বরূপ প্রকাশ করেছে কোম্পানীটি, এটি উইন্ডোজ ১১-এর প্রথম স্থিতিশীল বিল্ড হিসাবে প্রকাশ করেছে।

এটি মাইক্রোসফট কোম্পানির একটি দুর্দান্ত আপডেট। আমি উইন্ডোজ ১১ এ নতুনভাবে ডিজাইন করা স্টার্ট মেনু এবং অ্যাকশন সেন্টার থেকে শুরু করে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ সমর্থন, অটো-এইচডিআর এবং আরও অনেক কিছুর মধ্যে উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব তালিকাভুক্ত করেছি যা আপনি জানলে ব্যবহার করতে চাইবেন আজই ।

নতুন স্টার্ট মেনু

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্বর মধ্যে, নতুন লঞ্চার-স্টাইলে ভাসমান স্টার্ট মেনু হল মাইক্রোসফট এর পরবর্তী জেনার ডেক্সটপ ওএস এর সবচেয়ে স্বতন্ত্র অংশ। আগের স্টার্ট মেনুর চেয়ে এটি ভিন্ন নতুন স্টার্ট মেনু। এটি টাক্সবারের ঠিক মাঝ বরাবর বসানো রয়েছে। একে অপরের সাথে পিন করা এবং প্রস্তাবিত অ্যাপগুলি সাথে এটির একটি ফ্লাই আউট ডিজাইন রয়েছে। এখন পর্যন্ত আমার ব্যবহার করা স্টার্ট মেনুর সবচেয়ে ভালো সুবিধা রয়েছে। উইন্ডোজ ১১ আমার সম্প্রতি ইন্সটল করা ফাইল, ফটো এবং অ্যাপস গুলিতে দ্রুত এক্সেস পাওয়া যায়।

এছাড়াও আপনি চাইলে অনুসন্ধান মেনুতে আপনার মাউস পয়েন্টটি রেখে ঘুরাতে পারেন তখন সেটি আপনাকে অতীত অনুসন্ধানের উপর ভিত্তি করে কয়েকটি প্রস্তাবিত অ্যাপ অফার করবে। আমি মনে করি নতুন স্টার্ট মেনু হল উইন্ডোজ ১১-এর সেরা ফিউচার। উইন্ডোজ ১১ অতি দ্রুত আপনার প্রশ্নগুলিকে স্মার্টভাবে সমাধান করে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে সেরা ফলাফল প্রদান করবে।

নতুন অ্যাকশন সেন্টার

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব এর দ্বিতীয় প্রিয় বৈশিষ্ট্য হল পুনর্গঠিত একশন সেন্টার। নতুন অ্যাকশন সেন্টার খুলতে আপনি কেবলমাত্র ওয়াই ফাই, ভলিউম এবং ব্যাটারি বোতামে ক্লিক করতে পারেন। অ্যাকশন সেন্টার উজ্জ্বলতা এবং ভলিয়ম স্লাইডার সহ সমস্ত প্রয়োজনীয় নিয়ন্ত্রণগুলি ত্যাগ করে রেখেছে। আপনি চাইলে এখানে আগের মত আরও টগল যোগ করতে পারেন। এখানে আরো মজার বিষয় হল যে ব্লুটুথ সংযোগটি এখন অনেক দ্রুত কাজ করবে

এবং আপনার ডিভাইস টিকে যুক্ত করার জন্য আপনাকে সেটিংসে যাওয়ার দরকার নেই। এটি ব্যাজ সমর্থন সহ পরিছিন্ন ডিজাইনে বিজ্ঞপ্তি গুলিকে রাখে এবং উত্তর দেওয়ার বা বিশৃঙ্খলাতা সাফ করার জন্য যথেষ্ট জায়গা ধরে রাখে। এখানে বলাই বাহুল্য যে এই নতুন অ্যাকশন সেন্টার উইন্ডোজ ১০ এর অ্যাকশন সেন্টারের অগোছালো মেসের তুলনায় অনেক বেশি প্রতিক্রিয়াশীল।

ইউনিভার্সাল মিডিয়া কন্ট্রোল

ইউনিভার্সাল মিডিয়া কন্ট্রোল হলো উইন্ডোজ ১১ এর আরো একটি পরিচ্ছন্ন বৈশিষ্ট্য বা বিশেষত্ব। আপনি চাইলেই এখন উইন্ডোজ ১১ – এ নতুন অ্যাকশন সেন্টার থেকে আপনার সমস্ত মিডিয়া প্লেব্যাক নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। আপনি যদি একটি ইউটিউব ভিডিও, স্পটিফাই প্লে লিস্ট, একটি টুইটার ক্লিপ, বা একটি স্থানীয় ভিডিও চালান না কেন সবকিছুই অ্যাকশন সেন্টারে দেখা যাবে বা প্রদর্শিত হবে।

তবে মনে রাখবেন, আমি ভিএলসি প্লেয়ার দিয়ে একটি ভিডিও চালানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু এটি দেখানো হয়নি। কিন্তু যখন আমি নেটিভ ফিলিম ও টিভি অ্যাপস এর মাধ্যমে একই স্থানীয় ভিডিও প্লে করেছি তখন এটি নির্দোষ ভাবে আমাকে দেখিয়েছে।

আধুনিক ফাইল এক্সপ্লোরার

আধুনিক ফাইল এক্সপ্লোরারটি উইন্ডোজ ব্যবহারকারীদের মধ্যে বিতর্কের একটি প্রধান বিষয়। অনেকেই ফাইল এক্সপ্লোরার নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন যে কোন কিছু পরিবর্তন করতে হবে কেন যদি এটি নিজেই পুরোপুরি ভালো কাজ করে। আবার অনেকেই বলেছিলেন প্রকৃতপক্ষে এটির একটি আধুনিক পরিবর্তন প্রয়োজন। এবং আমি জেনে খুশি হয়েছি যে নতুন ফাইল এক্সপ্লোরার কার্যকারী এবং আপনার প্রয়োজনীয় সমস্ত বৈশিষ্ট্য রয়েছে এখানে।

আরো পড়ুনঃ রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র

আপনার কাছে এখন রঙিন নতুন আইকন একটি নতুন প্রসঙ্গ মেনু এবং উপরে একটি কমান্ড বার রয়েছে যা বিদ্যমান কে প্রতিস্থাপন করেছে। এবং আপনাদের সুবিধার্থে মাইক্রোসফট ফোল্ডার অপশনও রেখেছে। এবং আপনি চাইলে পুরনো প্রসঙ্গ মেনু পেতে পারেন। উইন্ডোজ ব্যবহারকারীরা যেটি ভয় করেছিলেন তা সত্যিই উইন্ডোজ ১১ এর সাথে সত্য হয়েছে। তবে মাইক্রোসফট অক্ষত সমস্ত বৈশিষ্ট্য গুলো বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছে।

নতুন মাইক্রোসফট স্টোর

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্বর মধ্যে আরও একটি সেরা বৈশিষ্ট্য হলো নতুন মাইক্রোসফট স্টোর। কেন না এটি গ্রাউন্ড আপ থেকে তৈরি এবং এখন উইন ৩২, .net, ইউডাব্লিউপি, ইলেক্ট্রন, জামারাইন, react native, জাভা, এমনকি প্রগ্রেসিভ ওয়েভ গুলিকে সমর্থন করে। আপনি চাইলে মাইক্রোসফট নতুন মাইক্রোসফট স্টোর মাইক্রোসফট এজের জন্য থিম এবং এক্সটেনশনগুলিও খুঁজে পাবেন। সত্যি বলতে কি অতীতে এটি অনেক স্লো থাকায় কখনোই আমি মাইক্রোস অফিসের বক্তা ছিলাম না।

তবে নতুন মাইক্রোসফট স্টোর সত্যিই দুর্দান্ত পারফর্ম দেখাচ্ছে। বর্তমান বিল্ডে একটি জিনিস লক্ষ্য করা যায় যে আপনি এখনো একটি অ্যাপের সর্বশেষ আপডেটের তারিখ দেখতে পারবেন না। তেমনি ভাবে নতুন মাইক্রোসফট স্টোর এন্ড্রয়েড এপগুলি কেউ সমর্থন করবে। তবে এই সমর্থন পরবর্তী পর্যায়ে আসবে।

উইন্ডোজ ১১-এ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস সাপোর্ট

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব এরমধ্যে একটি প্রধান হাইলাইট হলো এটি এখন অ্যামাজন অ্যাপ স্টোর দ্বারা চালিত অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপগুলি চালাতে পারে। তবে এখানে স্থিতিশীল উইন্ডোজ ১১ বিল্ডে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ সমর্থনরোল আউট করা হয়নি এখনো। তবে মাইক্রোসফট নিশ্চিত করেছে যে এন্ড্রয়েড অ্যাপ গুলি ইনস্টল করার বিকল্প পদ্ধতি আসন্ন বিলগুলিতে আসবে।

তবে এর সবচেয়ে ভালো দিক হলো আপনি আপনার উইন্ডোজ ১১ পিসিতে বা ল্যাপটপে APKs সাইডলোড করতে পারবেন। তবে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপগুলি নেটিভভাবে উইন্ডোজ ১১-এ চলবে এবং পারফরম্যান্স বেশ ভালো হবে। এখানে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল অ্যাপগুলি ইন্সটল এবং এএমডি উভয় প্রসেসরে চলবে। ইন্টেল ব্রিজ প্রযুক্তিতে নির্বিশেষে এই আশ্চর্যজনক বৈশিষ্ট্যটিকে প্রাণবন্ত করে তুলবে।

পুনরায় ডিজাইন করা সেটিংস অ্যাপ

উইন্ডোজ ১০ চালু হওয়ার পর থেকে মাইক্রোসফট প্রথমবারের মতো সেটিং অ্যাপ থেকে সম্পূর্ণরূপে সংশোধন করেছেন। এটা স্ক্যাস থেকে তৈরি করা হয়েছে। একটি মোবাইল চালিত ডিজাইন অনুসরণ করে যা ডেক্সটপ এবং ট্যাবলেট উভয়ের সাথে ভালোভাবে কাজ করবে। সেটিং সুন্দরভাবে মেনু এবং সাবমেনু দিয়ে শ্রেণীবদ্ধ ভাবে করা হয়েছে।

বামদিকে একটি স্থির মেনু রয়েছে। আপনার কাছে সহজে নেভিগেশনের জন্য এবং উন্নত স্বচ্ছতার জন্য প্রসারণযোগ্য সেটিংস বিকল্প রয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে সত্যি নতুন সেটিংস রিডিজাইন বেশ পছন্দনীয়। তবে এটি কিছুটা স্লো ধীর গতি সম্পন্ন যা আশা করার মতো প্রতিক্রিয়াশীল নয়। তবে আপনার হাতে এখনো কন্ট্রোল প্যানেল আছে।

দ্রুত উইন্ডোজ আপডেট

আপনি হয়তো চান যে আপনার কাছে দ্রুতগতির উইন্ডোজ আপডেট অধিকার থাকুক। তাহলে বলবো উইন্ডোজ ১১ আপনার জন্য পারফেক্ট। দ্রুত উইন্ডোজ আপডেট এর ক্ষেত্রে দ্রুত উইন্ডোজ আপডেট প্রক্রিয়া রয়েছে এখানে। ব্যাকগ্রাউন্ড ইনস্টলেশন এবং মেকানিজমের প্রক্রিয়া উন্নত।

মাইক্রোসফট প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে উইন্ডোজ আপডেটগুলি এখানে ৪০% ছোট হবে। এবং এটি আপডেট সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় আনুমানিক সময় দেখাবে। যেটি আপনার সময় এবং ঝামেলা বাঁচাবে। উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব এর মধ্যে এটি একটি সেরা বৈশিষ্ট্য।

স্ন্যাপ লেআউট এবং অন্যান্য নতুন মাল্টিটাস্কিং বৈশিষ্ট্য

আমরা উইন্ডোজ টেনে দেখেছি স্ন্যাপিং ইতি মধ্যেই খুব ভালো ছিল। তবে মাইক্রোসফট এটিকে আরো সহজ সাবলীল স্নেপ অ্যাসিস্ট এর সাহায্যে এগিয়ে নিয়ে গেছে। । বৈশিষ্ট্যের নাম স্ন্যাপ লেআউট। এখন, আপনি আপনার মাউস পয়েন্টারকে একটি উইন্ডোর ম্যাক্সিমাইজ বোতামের উপর ঘোরান, আপনি উইন্ডোটিকে কীভাবে নাড়াচড়া করাতে চান তার জন্য বিভিন্ন লেআউট পাবেন এখানে। আপনি চাইলে কি বোর্ড থেকে Win+Z শর্টকাটসহ স্ন্যাপ লেয়াউট বিকল্পটিও ব্যবহার করতে পারেন।

আপনি যদি বড় মনিটর ব্যবহার করেন তবে এটি আপনার প্রসারণ বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে। সেই সাথে উইন্ডোজ ১১ এ টাইমলাইন সরানো হয়েছে। এখন আপনার কাছে একটি পরিষ্কার ট্যাক্স ভিউ রয়েছে যেখানে আপনি যত খুশি ডেস্কটপ যুক্ত করতে পারবেন। একটি ডেস্কটপ তৈরি করার সময় স্বচ্ছতা পছন্দ করে অনেকে। তাই সামগ্রিকভাবে এই দুটি বৈশিষ্ট্য উইন্ডোজ ১১ এ গুণমানের সংযোজন এবং মাল্টি টাস্কিং অভিজ্ঞতা কে উন্নত করে।

উইন্ডোজ ১১ উইজেট

মাইক্রোসফট তার পরবর্তী জেনারেশন ডেস্কটপ ওএস এর জন্য মোবাইল চালিত ডিজাইনের আকর্ষণীয়তা কতটা জড়িত সেই দিকে খেয়াল রেখেছেন। প্রথমবারের মতো উইন্ডোজ ১১ এর সাথে মাইক্রোসফট উইজেট নিয়ে এসেছে। যেখানে আপনি চাইলে এক টি ক্লিকেই সব ধরনের তথ্য খুঁজে পেতে পারেন। এটি গুগল এসিস্ট্যান্ট এর স্ন্যাপশট বৈশিষ্ট্য এবং অ্যাপেলের iOS১৫ বা মেক oS মোন্টেরির টুডে ভিউয়ের মত। উইন্ডোজ ১১ উইজেট বিভাগ টি কাস্টমাইজযোগ্য আপনি চাইলে আপনার ইচ্ছেমতো আগ্রহ অনুযায়ী এটি ব্যক্তিগত করতে পারেন।

উইন্ডোজ ১১ চালিত ট্যাবলেটগুলির জন্য, উইজেট উইন্ডোটি পুরো স্ক্রীন পূর্ণ করে দেখায়, এটিকে আপনার সমস্ত ব্যক্তিগত আগ্রহের জন্য একটি ওয়ান-স্টপ ড্যাশবোর্ড তৈরি করে নিতে পারেন৷ আর যে ব্যবহারকারীরা এই নতুন বিশেষত্ব পছন্দ করবেন না তাদের জন্য, ভাল, আপনি যে কোন সময় কয়েকটি ক্লিকের মাধ্যমে উইন্ডোজ ১১ উইজেট প্যানেল বন্ধ করে দিতে পারেন।

নতুন কনটেক্স মেনু এবং গোলাকার কোণ

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা একটি বৈশিষ্ট্য উইন্ডোজ ১১ অবশেষে তীক্ষ্ণ কোনগুলি ছাড়া একটি আধুনিক মেনু নিয়ে এসেছে। এটি উইন্ডোজ ১১ সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলে। তবে এর প্রথম দিকে বিলড গুলিতে কনটেক্স মেরুতে কোন রিফ্রেস বাটন ছিল না। তবে ভয়ের কোন কারণ নেই মাইক্রোসফট ব্যবহারকারীর কথা বিবেচনা করে উইন্ডোজ ইনসাইডার রিভিউ বিল্ডগুলিতে রিফ্রেস বোতামটি ফিরিয়ে এনেছে। এটি “F5” শর্টকাট এখনো ।

আরো পড়ুনঃ ডাবল গ্যাসের চুলার দাম বাংলাদেশ ২০২৪

উইন্ডোজ ১১ তে কাজ করছে। বর্তমানে উইন্ডোজ এলিভেনের UI সত্যিই পছন্দনীয় এবং উইন্ডোজ UI উপাদান গুলির জন্য ব্যবহৃত নতুন Mica প্রভাবটিও খুব ভালো মানের দুর্দান্ত। এবং পাশাপাশি আপনি সর্বত্র বৃত্রাকার কোনগুলি পাবেন। আমি আশা রাখি মাইক্রোসফট এই স্তরের ধারাবাহিকতা বজায় রাখবেন যখন উইন্ডোজ ইউজাররা এগিয়ে যাবেন।

টিম চ্যাট ইন্টিগ্রেশন

উইন্ডোজ ১১ বিল্ড ২২০০০.১০০ প্রকাশ করার পর মাইক্রোসফট অবশেষে টিম চ্যাট কে টাচডবারে নিয়ে এসেছে। উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব বা বৈশিষ্ট্যের মধ্যে এটি একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হতে চলেছে। ট্রাকসবার থেকে একটি ক্লিকের মাধ্যমে আপনি ভিডিও কল, অডিও কল,

এবং চ্যাটের মাধ্যমে আপনার বন্ধু এবং পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। MacOS-, iMessage or FaceTime- এর বিকল্প হিসেবে এটিকে তৈরি করা হয়েছে। আপনি চাইলেই এখন উইন্ডোজ ১১ এ ফেসটাইম ব্যবহার করতে পারেন। তবে মনে রাখবেন যে অডিও এবং ভিডিও কলগুলি এখনো চালু করা হয়নি খুব শীঘ্রই এটি হবে।

নতুন আপনার ফোন অ্যাপ

উইন্ডোজ ১১ ২০১৮ সালে প্রকাশ করার পর থেকে মাইক্রোসফট আপনার ফোন অ্যাপটি কে ক্রমাগত উন্নত করেছে। কিন্তু স্থিতিশীল উইন্ডোজ ১১ রিলিজের পরে মনে হচ্ছে আপনার ফোনের একটি নতুন সংস্করণ স্মৃতিশীলসহ উইন্ডোজ ১১ এসেছে। এবং এটি অত্যাধিক নান্দনিকতায় UI এর সাথে মিল রেখে উইন্ডোজ ১১ এ তৈরি করা হয়েছে।

এটি যদিও বিদ্যমান সংস্করণটিফোন যে কোন ফোন থেকে এন্ড্রয়েড অ্যাপ চালু করা সমর্থন করে এবং তা শুধুমাত্র samsung ফোনের জন্যই সীমাবদ্ধ রয়েছে। তবে আশা করা যায় যে windows 11 এর নতুন আপনার ফোন অ্যাপটি সমস্ত এন্ড্রয়েড ফোনে অ্যাপস মিররিং নিয়ে আসবে।

নতুন এমএস পেইন্ট, ফটো, এমএস অফিস, মিডিয়া প্লেয়ার

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব এর সবচেয়ে ভালো জিনিসগুলির মধ্যে হলো যে মাইক্রোসফট কেবল গোলাকার কোন এবং Mica উপাদান সহ নতুন ফ্লুয়েন্ট UI-তে OS কে রিস্কিন করছে না। মাইক্রোসফট তার প্রথম পক্ষের অ্যাপ গুলোকে পুনরায় আবার ডিজাইন করার জন্য একই রকম প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। কোম্পানিটি তার প্রাচীনতম অ্যাপগুলির মধ্যে পেইন্টকে নতুন ডিজাইনের ভাষায় সংশোধন করেছে এবং এটি দেখতে অনেক সুন্দর। বর্তমানে উইন্ডোজ ১১ জেড বিল্ট নতুন পেইন্ট অ্যাপ নিয়ে এসেছে।

যা বাকি ইউআই উপাদানের সাথে সিঙ্ক করা যায়। তেমনি ভাবে ফটো অ্যাপস টি গোলাকার কোন এবং নতুন বৈশিষ্ট্যগুলির সাথে আপডেট করা হয়েছে। পাশাপাশি জায়গা, ভাসমান টুলবার, স্মার্ট শ্রেণীকরণ এবং আরো অনেক কিছু রয়েছে এখানে। আপনি যদি নতুন ইউআই না পেয়ে থাকেন। তাহলে ইউটিউবে গিয়ে দেখুন উইন্ডোজ ১১ নতুন ফটো অ্যাপ ম্যানুয়ালি কিভাবে ইন্সটল করবেন।

ফোকাস সেশন

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা বৈশিষ্ট্যের মধ্যে ফোকাস সেশন (Focus Sessions) হলো সেরা অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য। কারণ এটি মাইক্রোসফটের ডেক্সটপ ওএস-এ নতুন কিছু নিয়ে এসেছে যা আমরা স্মার্ট ফোনে দেখেছি। উইন্ডোজ ১১ কে আরো বেশি উন্নত করতে মাইক্রোসফট চাই ব্যবহারকারীরা অ্যালার্ম

এবং ক্লক অ্যাপ ডেডিকেটেড ফোকাস সেশন (Focus Sessions) বৈশিষ্ট্যটি ব্যবহার করুক। আপনি আপনার কাজগুলোকে সহজভাবে পরিচালনা করতে আপনি এখানে মাইক্রোসফট টু-ডু তালিকা লিংক করে রাখতে পারেন এবং কাজের সময় আপনার প্রিয় গান শুনতে স্পটিফাই সংযুক্ত করতে পারেন। আপনি অধিক পরিমাণের সময় নিয়ে কাজ করতে থাকলে এটি আপনাকে বিরতি নেওয়ার কথা মনে করিয়ে দেবে।

আপনি চাইলে এখানে টাইমার সেট করে রাখতে পারবেন। আপনি চাইলে এখানে আপনার কাজের অগ্রগতির ট্র্যাক রাখতে একটি সহায়ক ড্যাশবোর্ড নিয়ে রাখতে পারেন। এখানে আরো মজার বিষয় হলো ফোকাস সেশন (Focus Sessions) এর জন্য একটি উইকেট রয়েছে যা আপনি দ্রুত চোখে দেখার জন্য ডেস্কটপে রাখতে পারবেন।

ভয়েস টাইপিং

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বৈশিষ্ট্যের মধ্যে ভয়েস টাইপিং আমার প্রিয় একটি বৈশিষ্ট্য। কারণ টাইপিং এখানে অতি দ্রুত হয় এবং সহজে করা যায়। এটি একটি দুর্দান্ত এক্সেসিবিলিটি টুল হিসেবে কাজ করে। আপনি চাইলে শুধু উইন্ডোজ ১১ কিবোর্ড শর্টকাট ‘Win + H’ চাপতে হবে। এরপর আপনি যা লিখতে চান তা মুখে বলা শুরু করুন। আমি আমার এন্ড্রয়েড ডিভাইসে আগে গুগল ভয়েস টাইপিং ব্যবহার করতাম। এটি সম্পূর্ণ সঠিক লেখা দিতে পারে না কিছুটা ভুলও দেয়।

কিন্তু আমি অবাক হয়েছি যে মাইক্রোসফট প্রকৃতপক্ষে তার ভয়েস সনাক্তকরণ এলগরিদম উন্নত করেছে এবং এটি চমৎকারভাবে কাজ করে থাকে। উইন্ডোজ ১১ ভয়েস টাইপিং এ স্বয়ংক্রিয় বিরাম চিহ্নকে সমর্থন করে যা সত্যি অসাধারণ। তাই আপনি আপনার টাইপিং কে আরো দ্রুত করতে চলে অবশ্যই উইন্ডোজ ১১ ভয়েস টাইপিং টি ব্যবহার করুন।

উন্নত অঙ্গভঙ্গি নিয়ন্ত্রণ

আমরা দীর্ঘদিন ধরে উইন্ডোজ ১০ এ অঙ্গভঙ্গি (Gesture) দেখে এসেছি। যা স্পষ্ট বলতে গেলে সেগুলি খুব মসৃণ ছিল না এবং অ্যাপস এবং ভার্চুয়াল ডেস্কটপ এর মধ্যে পরিবর্তন গুলি খুবই খারাপ ছিল। বর্তমানে উইন্ডোজ ১১ পিসির জন্য নতুন অ্যাডভান্স জেসচার কন্ট্রোল এবং বাধ্যতামূলক নির্ভুল টাচপ্যাডের প্রয়োজনীয়তার সাথে যথেষ্ট ভালো দেখায়। আপনি চাইলে এখন আপনার পছন্দমত তিন আঙ্গুল অথবা চার আঙ্গুলের সোয়াইব করে কাস্টমাইজ করতে পারেন।

উইন্ডোজ ১১ ইনসাইডার প্রিভিউ বিল্ট ২২০০০.৫১ পরীক্ষা করার পর বলতেই হয় যে অ্যাপ ভার্চুয়াল ডেস্কটপ ওয়েবপেজ পরিচালনা এবং আরও অনেক কিছুর মধ্যে কাজ করার সময় নতুন উন্নত অঙ্গভঙ্গি নিয়ন্ত্রণ মসৃণ বোধ করে। এটি ব্যবহারে আপনার মনে হবে আপনি একটি ট্যাবলেটের সাথে ইন্টারেক্ট করছেন।

নতুন আধুনিক লক স্ক্রীন

সবাই যখন নতুন ডিজাইনের উইন্ডোজ ১১ ভিতরে কি আছে তা জানার জন্য অনেক আগ্রহ দেখায়। তখন আমি আপনাকে বলি যে উইন্ডোজ ১১ এর নতুন লক স্ক্রীন টি অনেক আধুনিক এবং বিস্ময়কর দেখাচ্ছে। এর ব্যাকগ্রাউন্ডে একটি এক্রাইলিক ব্লার প্রয়োগ করে

এবং নতুন পরিবর্তনশীল Segoe UI ফন্ট সেটিকে আরো সুন্দর করে তুলে। আপনি যদি লক স্ক্রীনে সমস্ত লিংক এবং যেকোনো ধরনের ঝামেলা না চান। তবে আপনি একটি পরিষ্কার লক স্ক্রীনের জন্য সেটিং থেকে সেগুলিকে বন্ধ করে দিতে পারবেন।

নতুন ওয়ালপেপার এবং শব্দ

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব এটি একটি হতে চলেছে। উইন্ডোজ ১১ মাইক্রোসফট সুন্দর ওয়ালপেপার, স্মুথ সাউন্ড এবং থিমের একটি সিরিজ নিয়ে এসেছে। ক্যাপচার মোশন ফ্লো সানরাইজ গ্লো এর মত ওয়াল পেপার হলো সবচেয়ে বেশি সুন্দর ওয়ালপেপার যা আপনি ডেক্সটপ ওএসএ খুঁজে পাবেন। এ ছাড়া স্টার্টআপ এবং নোটিফিকেশন শব্দ খুবই ভালো। আপনি চাইলে windows 11 তে ওয়াল পেপার ডাউনলোড করতে পারেন

এবং উইন্ডোজের লিংক করা নিবন্ধনগুলি থেকে উইন্ডোজ ১১ শব্দ শুনতে পারবেন। এর আরও বেশি সুবিধাজনক একটি দিক হলো এখানে ডার্ক মোড এবং লাইট মোড দুটি অপশন রয়েছে মোবাইলের মত। উইন্ডোজ ১১ ডার্ক থিমটি UI উপাদান এর সাথে বেশ সামঞ্জস্যপূর্ণ।

আকস্মিক অ্যানিমেশন

উইন্ডোজ ১১ এর সেরা সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব মধ্যে এটি একটি যা UI জুড়ে পরিবর্তনশীল অ্যানিমেশন। টাস্কবার থেকে নতুন স্টার্ট লঞ্চার বা যেকোনো অ্যাপস খুললে আপনি একটি দুর্দান্ত বাউন্সি অ্যানিমেশন দেখতে পাবেন। এখন, অ্যাপগুলির মধ্যে স্যুইচ করুন বা টাস্ক ভিউ দেখুন, সেখানে আপনার একটি আকস্মিক অ্যানিমেশন রয়েছে।

উইজেট প্যানেলটি সোয়াইপ করুন বা অ্যাকশন সেন্টার বন্ধ করুন, প্রতিটি UI উপাদান পরিষ্কার অ্যানিমেশনে দেখায় এবং তা দেখতে আশ্চর্যজনক অনুভব হয়। UI এবং UX সম্পর্কে আমি মনে করি উইন্ডোজ ১১ এটিকে ময়দান থেকে সরিয়ে দিয়েছে, যার মাধ্যমে কার্যকরী উপাদান এবং সুন্দর ডিজাইনকে ফুটিয়ে তুলেছে।

টার্চ কীবোর্ড সুবিধা

উইন্ডোজ ১১ তে মাইক্রোসফ্ট ট্যাবলেট মোড সরিয়ে দিয়েছে একটি সঙ্গত কারণে। বর্তমানের তারা নতুন ইউনিফাইড ইন্টারফেস তৈরি করেছে যা ডেস্কটপ এবং ট্যাবলেট উভয়ের জন্য কাজ করে। ট্যাবলেটের অনুভব উন্নত করতে, টাচ কীবোর্ডটি উইন্ডোজ ১১-তে বড় ধরনের উন্নতি লাভ করেছে।

তার মধ্যে রয়েছে, ব্যাকগ্রাউন্ড ইমেজ, থিম, টেক্সট সাইজ কাস্টমাইজ করার সক্ষমতা, টাইপিং এর ব্যবহার এবং আরও অনেক কিছু। তাই বলা যায় আপনার যদি একটি উইন্ডোজ ট্যাবলেট থাকে, তাহলে উইন্ডোজ ১১ আপনার ট্যাবলেট টিতে ইন্সটল করুন দেখবেন সম্পূর্ণ নতুন অভিজ্ঞতা পাবেন এখানে।

অটো এইচডিআর এবং শক্তিশালী রিফ্রেশ রেট

উইন্ডোজ ১১ প্রকাশের সময়, মাইক্রোসফ্ট অটো এইচডিআর-এর জন্য সমর্থন ঘোষণা করেছে যা গেম খেলার সময় দেখার বাস্তবিক অভিজ্ঞতাকে উন্নত করবে। যারা গেমিং খেলায় অভ্যস্ত তাদের জন্য এটি একটি অত্যন্ত ভালো এবং দুর্দান্ত বৈশিষ্ট্য। এছাড়াও, উইন্ডোজ-১১ OS এর সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করার সময়

একটি মসৃণ এবং পরিবর্তনশীল অভিজ্ঞতা দেওয়ার জন্য উইন্ডোজ ১১-এ ডায়নামিক রিফ্রেশ রেট তৈরি করা হয়েছে। উইন্ডোজ ১১ বিল্ড ২২০০০.৫১-এ 75Hz পর্যন্ত রিফ্রেশ হার সমর্থন করে এই বৈশিষ্ট্যটির সুবিধা সুবিধা অনেক। তাই বলা যায়, মসৃণ, উচ্চ রিফ্রেশ রেট উইন্ডোজ মেশিনের ভবিষ্যত খুব কাছাকাছি, এবং আমি অবশ্যই আশাবাদী।

ক্লিপবোর্ড সিঙ্কিং

আপনার তে থাকা ফোন অ্যাপের মাধ্যমে, মাইক্রোসফ্ট পিসি এবং স্মার্টফোনের মধ্যে ব্যবধান কমানোর চেষ্টা করছে উইন্ডোজ ১১ ক্লিপবোর্ড সিঙ্কিং এ বৈশিষ্ট্যটির মাধ্যমে। এটি একটি পিসি এবং একটি স্মার্টফোন উভয়ের মধ্যে সার্বজনীন ক্লিপবোর্ড সিঙ্ক করার মতো কিছু সাধারণ জিনিসগুলিকে শক্তভাবে অংশভুক্ত করতে চায়। আপনার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে উইন্ডোজ ১১ এবং SwiftKey বিটা দিয়ে আপনি

আপনার স্মার্টফোনে লেখা কপি করতে পারেন এবং কম্পিউটারে নির্বিঘ্নে পেস্ট করতে পারেন।বর্তমানে, এটি ক্লাউড ক্লিপবোর্ডের মাধ্যমে ছবি এবং ভিডিও শেয়ারিং অনুমোদন দেয় না, তবে আমরা ভবিষ্যতে উপরোক্ত বৈশিষ্ট্যগুলি পেতে পারি। আপনি যদি অ্যান্ড্রয়েড ফোন এবং উইন্ডোজ ১১ পিসিতে ক্লিপবোর্ড সিঙ্ক করা জানতে চান তবে ইউটিউবে ভিডিও দেখে শিখে নিতে পারে।

স্ক্রীন টাইম এবং ব্যাটারি ব্যবহার

বর্তমানে যেহেতু উইন্ডোজ১১ মাইক্রোসফ্ট সেটিংস অপশন সম্পূর্ণভাবে সংশোধন করেছে, নতুন করে তারা উইন্ডোজ ১১-এ তাদের সেটিংস গুলো সাজিয়েছে। আপনি এখন ব্যাটারি চার্জ করার সম্পূর্ণ কার্যক্রম দেখতে পারবেন এবং জানতে পারবেন। স্ক্রীনটি কতক্ষণ থেকে অন করা রয়েছে তা জানতে পারবেন৷ এছাড়াও, এটি ব্যাটারি ব্যবহারের সম্পূর্ণ একটি গ্রাফ আকারে দেখাবে

আরো পড়ুনঃ কিডনি বিক্রি হাসপাতাল বাংলাদেশ – বাংলাদেশে কিডনির দাম কত

যার মাধ্যমে আপনি আপনার ল্যাপটপের ব্যাটারি কার্যকর ক্ষমতা পরিমাপ করতে পারেন। এখানে সবচেয়ে ভালো বিষয় হলো, আপনি ব্যাটারির ক্ষতিকর অ্যাপগুলির তালিকাও খুঁজে বের করতে পারেন। উইন্ডোজ ল্যাপটপ ব্যবহারকারীদের জন্য স্ক্রীন টাইম এবং ব্যাটারি ব্যবহার একটি দুর্দান্ত উইন্ডোজ ১১ বৈশিষ্ট্য।

ARM এমুলেশন

এবারের লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন, উইন্ডোজ ১১ ARM64EC স্তর সহ ARM PC গুলিতে ৬৪বিট এমুলেশনের সহায়তা নিয়ে এসেছে। বর্তমানে উইন্ডোজ ১১-এ এটি একটি বিশাল বড় উন্নয়ন, এবং মাইক্রোসফ্ট বহু বছর দীর্ঘ বিরতির পরে একটি দুর্দান্ত প্রচেষ্টাকে সফল করেছে। অবশেষে, আপনি এখন ARM-ভিত্তিক উইন্ডোজ ১১ পিসিতে Win-32 ও Win-64 বিট উভয় অ্যাপ চালাতে পারবেন। প্রকৃতপক্ষে, মাইক্রোসফ্ট ইতিমধ্যে ARM-ভিত্তিক কম্পিউটারের জন্য পূর্ণ বড় Win-64 বিট অফিস অ্যাপ চালু করেছে।

এটা বিস্ময়কর, এটি আচ্ছন্ন করার জন্য, এআরএম-ভিত্তিক উইন্ডোজ পিসিগুলির জন্য মাইক্রোসফ্ট কাজ করছে, তুলনা অনুযায়ী মাইক্রোসফট এর কাছে এটি হচ্ছে ছোট ধরনের কাজ। তারা অনেক বড় বড় কাজ করে থাকে তাই বলা যায় এটি ভোক্তাদের জন্য অবশ্যই একটি বড় ধরনের পাওয়া। আমি আশা করি মাইক্রোসফ্ট কোম্পানী একটি উন্নত এবং সুন্দর সাবলীল উইন্ডোজ ১১ তৈরির জন্য তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে।

উপসংহার

পরিশেষে বলবো উইন্ডোজ এলিভেন বর্তমানে একটি দুর্দান্ত কার্যক্রম পরিচালনা করছে। আপনাদেরকে প্রথমে ই বলেছিলাম যে আজকের লেখাটি হবে উইন্ডোজ ১১ এর সেরা ২৫টি নতুন বিশেষত্ব যা আপনি জানলে ব্যবহার করতে চাইবেন। আপনি যদি আমার এই লেখাটি সম্পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে পড়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই বুঝতেই পারছেন এখন আপনি এই উইন্ডোজ ১১ টি ব্যবহার করতে চাইবেন।

কেননা বর্তমানে উইন্ডোজ ১১ তে অনেক অনেক আপডেট নিয়ে বাজারে এসেছে। ভোক্তাদের বা গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী তৈরি করা হয়েছে উইন্ডোজ ১১। উইন্ডোজ ১১ এর সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হল এখানে অন্যান্য উইন্ডোজদের চেয়ে এখানে দ্রুত কাজ করতে পারবেন। এবং কাজের মান হবে খুব ভালো স্বচ্ছ, সুন্দর এবং নির্ভুল। এখানে আপনি ভার্চুয়াল ডেস্কটপ এর মাধ্যমে অনেকগুলো উইন্ডো নিয়ে কাজ করতে পারবেন।

উইন্ডোজ ১১ টাইপিং এর জন্য রয়েছে বাড়তি সুবিধা। যেখানে আপনি হাতে লেখালেখি করে এক ঘন্টায় কাজ করবেন সেই কাজ এখানে পাঁচ মিনিটে হবে। তাহলে বুঝতেই পারছেন আপনার জন্য উইন্ডোজ ১১ কতটা গুরুত্বপূর্ণ। তাহলে আর দেরি কেন আজই ইনস্টল করে নিন উইন্ডোজ ১১ ।

Assalamu Alaikum! Hello world, I am Md. Hafijul Islam (mhihafijul). I am a Bangladeshi SEO expert. And I have been writing high quality Bengali content for a long time. I can write very nice SEO friendly articles. Along with that we do onpage seo, offpage seo and technical seo in proper guidelines. For which every article I write ranks on Google's fast page.

Sharing Is Caring:

Leave a Comment

error: Content is protected !!