ফরসেজ কি হালাল নাকি হারাম – Forsage এর কাজ কি – জেনে নিন

আপনি হয়তো জানে না যে ফরসেজ কি Forsage এর কাজ কি যার জন্য হয়ত গুগলে সার্চ দিয়েছেন। আর এখন আপনি সঠিক জায়গাতে এসেছেন। আজকে আমি Forsage নিয়ে বিস্তারিত খুঁটিনাটি তথ্য তুলে ধরবো এই আর্টিকেলটির মাধ্যমে। আজকে আমরা Forsage এর কাজ কি এবং ফরসেজ কি হালাল নাকি হারাম ইনকাম করার কৌশল জেনে নিব।

বর্তমানে ব্লকচেইন ফরসেজ এর মাধ্যমে ইনকাম করার আরো একটি পদ্ধতি বের হয়েছে। এখানে ট্রেন্ডিং করে খুব সহজে ইনকাম করা যায়। তাহলে চলুন এখন আমরা forsage এর কাজ কি এবং ফরসেজ কি হালাল নাকি হারাম ইনকাম করার কৌশল জেনে নিই।

Forsage কি

আজকে আমি ফরসেজ কি? Forsage কিভাবে কাজ করে থাকে সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব এই আর্টিকেলটির মাধ্যমে। তাই অবশ্যই এই আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। Forsage হলো একটি ব্লকচেইন ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম যা পেয়ার টু পেয়ার ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেন করা হয়ে থাকে ডিজিটাল মাধ্যমে। Forsage ইথারিয়াম ব্লক চেন কাজ করে থাকে। Forsage ব্যবহারকারীরা একটি নেটওয়ার্ক মার্কেটিং সিস্টেমে অংশগ্রহণ করে ক্রিপ্টোকারেন্সি উপার্জন করে থাকে।

Forsage এর প্রধান কাজ হল নেটওয়ার্ক মার্কেট সিস্টেমে অংশগ্রহণকারীদের টিম বোনাস রেফারেল বোনাস সহ বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় আয়ের মাধ্যমে ইথারিয়াম ব্লকচেইন বা ক্রিপ্টোকারেন্সি উপার্জন করার একটি প্ল্যাটফর্ম। মূলত Forsage এ রেফার করে সবচেয়ে বেশি ইনকাম করা যায়। Forsage সাধারণত দুইটি ম্যাট্রিক্স রয়েছে একটি হলো এক্স থ্রী এবং একটি হলো এক্স ফোর। আপনি চাইলে এই দুটি ম্যাট্রিক্সের যেকোনো একটির সদস্য তা নিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন।

এতে করে আপনার ম্যাট্রিক্স এ যত জন সদস্য যোগ হবে। তার উপর ভিত্তি করে আপনি একটি রেফারেল বোনাস পাবেন আর তা থেকে আপনার ইনকাম হবে। আর এই রেফারেল বোনাসের ইনকামের অর্থ শুধুমাত্র ইথারিয়াম ব্লকচেইন দ্বারা পরিচালিত হবে।আশা করি এখন আপনি Forsage কি জানতে পেরে গেছেন। এবারে চলুন Forsage এর কাজ কি এবং ফরসেজ কি হালাল নাকি হারাম সেটি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিব।

Forsage এর কাজ কি – Forsage কাজ কি

আশা করি আমার এই আর্টিকেলটির শুরুতে পড়েই আপনি জানতে পেরে গেছেন Forsage কি। Forsage হলো একটি ব্লক সেণ যার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা যায়। তাহলে চলুন forsage কাজ কি এখন বিস্তারিত জেনে নেই। মূলত অর্থ উপার্জনের নতুন একটি প্লাটফর্ম হচ্ছে Forsage। এখানে আপনি রেফারেলের মাধ্যমে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। তবে ফরসেজ এর দুটি ম্যাট্রিক্স রয়েছে একটি হলো এক্স3 এবং একটি হচ্ছে এক্স4।

আর এ দুটি ম্যাট্রিক্সের যেকোনো একটি ম্যাট্রিক্সের সদস্যতা আপনাকে নিতে হবে সর্বপ্রথম। আপনি আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে সম্পন্ন পড়ুন। তাহলে জানতে পারবেন যে প্রথমে Forsage একাউন্ট খুলতে বা এই ম্যাট্রিক্স এর সদস্যতা নিতে কত ডলার খরচ করতে হবে আপনাকে। Forsage এর মূল কাজই হল রেফারেল করে রেফারেল বোনাস উপার্জন করা।

আরো পড়ুনঃ ফেসবুক বোনাস প্রোগ্রামের যোগ্যতা কি কি জেনে নিন

আপনি ফরসেজ ব্যবহার করে যে অর্থ উপার্জন করবেন তা শুধুমাত্র ইথারিয়াম ওয়ালেট বা ব্লক চেনের মাধ্যমে উত্তোলন করতে পারবেন। forsage এর কাজই হল রেফারেল করা সদস্য বাড়ানো আপনার ফরসেজ ম্যাট্রিক্সের যত সদস্য বৃদ্ধি পাবে আপনার আয়ও তত বৃদ্ধি পাবে। আশা করি এখন আপনি বুঝতে পেরেছেন forsage এর কাজ কি।

Forsage io কি- Forsage.io কত দিন থাকবে – forsage io কত দিন থাকবে

অনেকেই জানতে চেয়ে থাকেন কিংবা গুরু বলে সার্চ দিয়ে থাকেন যে forsage.io কত দিন – forsage io কত দিন থাকবে থাকবে। forsage io কি অথবা forsage.io কি আসলে forsage.io হল ব্লকচেইন ভিত্তিক ক্রিপটোকারেন্সি। তাই forsage.io কত দিন থাকবে বা না থাকবে সেই চিন্তা না করে বেশি বেশি ইনকাম করার চিন্তা করুন এখানকার অর্থ আপনার মার যাবে না।কেননা এখানে যা ইনকাম করবেন তা গিয়ে জড়ো হবে আপনার টাস্ট ওয়ালেটে তাই forsage.io প্লাটফর্মটি না থাকলেও আপনি আপনার কাজ করা টাকা পেয়ে যাবেন।

forsage.io শুধুমাত্র একটি নেটওয়ার্ক সিস্টেমের মাধ্যমে ব্যবহার হয়ে থাকে। তাই নির্দিষ্ট করে বলা যায় না যে forsage.io কতদিন থাকবে। তবে আমাদের সাধারণ ধারণা অনুযায়ী যে ব্লকচেইনগুলোর জনপ্রিয়তা দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং ব্যবহারকারীদের ব্যবহার বৃদ্ধি পায় দিন দিন সেগুলো প্ল্যাটফর্ম মোটামুটি ভালই টিকে যায়। এবং অনেকদিন ধরেই তারা সেবা প্রদান করতে থাকে। তাই forsage.io কত দিন থাকবে – forsage io কত দিন থাকবে এখানে বলা যায় যে ২০২০ সাল থেকে শুরু হয়ে বর্তমান পর্যন্ত forsage.io মোটামুটি ভালো সার্ভিস দিয়ে আসছেন।

এবং এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়ে চলেছে। বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যাও প্রায় লাখ ছাড়িয়ে গিয়েছে। তবে অনেক মাধ্যমেই শোনা যায় যে forsage.io ইস্কাম প্লাটফর্ম এখানে প্রতারণা হয় নাকি। আমরা যেহেতু অনলাইন থেকেই এই forsage.io প্লাটফর্মটি কে চিনেছি তাই নির্দিষ্ট করে বলা যায় না forsage.io কতদিন থাকবে। আশা করি আপনি এই বিষয়টি এখন বুঝতে পেরেছেন।

Forsage.io কি হালাল

অনেকে প্রশ্ন করে জানতে চেয়ে থাকেন যে, forsage.io কি হালাল। না ভাই forsage.io হালাল নয়। কেন না forsage.io হালাল হওয়ার কোন প্রক্রিয়া নাই এর মধ্যে। এটি সম্পূর্ন একটি জুয়া টাইপের। আমরা ছোট বেলা থেকে জেনে আসছি যে, বিভিন্ন ধরনের জোয়া খেরা কিংবা যেখানে টাকা দিলে আবার সেখানে দ্বিগুন হয়ে যায়। এই ধরনের সকল কার্য ক্রম হারাম কখনো হালাল নয়।

Forsage.io সংবাদ

বর্তমানে বিভিন্ন মিডিয়া চ্যানেলে পত্র পত্রিকাতে forsage.io সংবাদ প্রকাশ করছে। অন্যান্য কোম্পানীর মত এই ফরসেজ সঠিক না কি বেঠিক জেনে বুঝে এখানে টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। এছাড়াও আপনি forsage.io সংবাদ এর মাধ্যমে অনেক তথ্য জানতে পারবেন। যা আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন হবে। তাই বর্তমানে এখন আপনাদের মধ্যে অনেকে এখন forsage.io সংবাদ সার্চ করে আপডেট তথ্যগুলো জানতে পারছে। আশা করি বিষয়টি বুঝেছেন।

Forsage.io ki বা ফরসেজ কি

forsage.io ki বা ফরসেজ কি? forsage.io ফরসেজ বা হল ব্লক ভিত্তিক অনলাইন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে আপনি ডিপোজিট করার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এখানে forsage.io হল মোবাইল অ্যাপস এবং ফরসেজ হচ্ছে তাদের ওয়েবসাইট। বর্তমানে ফরসেজ forsage.io খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে দিন দিন। আর এই জনপ্রিয়তা অর্জন করার একমাত্র কারণ তাদের বিশ্বস্ততা। বর্তমানে সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে।

এবং এই প্লাটফর্মে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার মানুষ নিযুক্ত হচ্ছেন প্রতিনিয়ত। ভার্সেস আয়ুর সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এখানে আপনি এর মাধ্যমে ডলার ডিপোজিট করতে পারবেন এবং আপনি আপনার নিতে পারবেন টাস্ট ওয়ালেটের মাধ্যমে। এই লেখাটির মাধ্যমে আমি একদম forsage.io ki কিভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেছি। তাহলে আশা করি এখন আপনি বুঝে গেছেন যে forsage.io ki বা ফরসেজ কি।

Forsage কি হালাল

অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন বা গুগলে সার্চ দিয়ে থাকেন forsage কি হালাল। তাহলে চলুন জেনে নিয়ে এবার এই বিষয়টি নিই বিস্তারিত। আপনি হয়তো জানেন কিংবা জানেন না যে বিটকয়েন বা ক্রিপ্টোকারেন্সি পৃথিবীর সকল দেশে নি*ষিদ্ধ এবং এটি অবৈধ। আর ফরসেজ হলো ইথারিয়াম ক্রিপ্টোকারেন্সি ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম। ইথারিয়াম বা বিটকয়েন একই ধরনের ডিজিটাল কারেন্সি।

এ সকল কারেন্সি নির্দিষ্ট কোন মালিকানা নেই, কোন প্রতিষ্ঠানও। তাই বলা যায় যে, forsage হালাল নয়। তবে আপনি চাইলে forsage একাউন্ট খুলে রেফারের মাধ্যমে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আশা করি এখন আপনি বুঝতে পেরেছেন যে, forsage হালাল নয়।

ফরসেজ কি হালাল

সবচেয়ে বেশি প্রশ্ন করে থাকেন বা গুগলে সার্চ দিয়ে থাকেন যে ফরসেজ কি হালাল লিখে। তাহলে চলুন এখন জেনে নেই এবার এই বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত। আপনি হয়তো জানেন যে বিটকয়েন বা ক্রিপ্টোকারেন্সি পৃথিবীর সকল দেশে নি*ষিদ্ধ এবং এটি অ*বৈধ। আর ফরসেজ হলো ইথারিয়াম ক্রিপ্টোকারেন্সি ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম। ইথারিয়াম বা বিটকয়েন একই ধরনের ডিজিটাল কারেন্সি।

এ সকল কারেন্সি নির্দিষ্ট কোন মালিকানা নেই, নেই কোন প্রতিষ্ঠান। যার ফলে ইসলামে ফরসেজ হালাল নয়। এটি সম্পূর্ন হারাম। ফরসেজ হালাল নয় তার বড় প্রমান হলো এটি একটি স্টোক মার্কেটিং যা আপনার টাকাকে দ্বিগুণ করে দিবে খুব দ্রুত।

ফরসেজ কিভাবে কাজ করে – ফরসেজ থেকে ইনকাম

ফরসেজ কিভাবে কাজ করে বা ফরসেজ এর কাজ কি ফরসেজ থেকে ইনকাম সম্পর্কে বলবো এখন। আমি উপরে বলেই দিয়েছি যে ফরসেজ এর কাজ কি। তারপরে চলুন এখন আমার জেনে নিই ফরসেজ কিভাবে কাজ করে থাকে। ফরসেজ রেফারেল এর মাধ্যমে কাজ করে থাকে। আমি আগেই বলে দিয়েছি যে দুটি ম্যাট্রিক্স রয়েছে তার মধ্যে যেকোনো একটি সদস্যতা আপনাকে আগে নিতে হবে এই প্লাটফর্মে কাজ করতে হলে।

আপনি যদি এখনো উপরের লেখাটি না পড়ে থাকেন তাহলে এখনি পড়ে আসুন তাহলে জেনে যাবেন ম্যাট্রিক্স দুইটির নাম কি। আপনি ফরসেজ প্লাটফর্মে কাজ করতে চাইলে প্রথমে ডলার খরচ করে তাদের যেকোনো একটি ম্যাট্রিক্সের সদস্য পদ নিয়ে নিয়মিত তার রেফার করতে থাকবেন। এতে করে ফরসেজ ম্যাট্রিক্সের সদস্য বৃদ্ধি পাবে।

আরো পড়ুনঃ ভালো মানের কম্পিউটারের দাম কত ডেক্সটপ কম্পিউটারের দাম

আর এই সদস্যতা বৃদ্ধি পাওয়ার মাধ্যমে আপনার একাউন্টে ইথারিয়াম ক্রিপ্টোকারেন্সি যুক্ত হবে। আমরা জানি যে ফরসেজ কাজ করে এটারিয়াম ব্লক চেনের মাধ্যমে যা পিয়ার টু পিআর লেনদেন করে থাকে। নিয়োগের মাধ্যমে ফরসেজ কাজ করে থাকে। তাই ফরসেজকে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানও বলা যায়। মূলত আপনি ফরসেজ প্ল্যাটফর্মে বিনিয়োগ করে আয় উপার্জন করতে পারবেন।

তবে এখানে বিনিয়োগ করা উচ্চ ঝুঁকি সম্পন্ন রয়েছে। তাই অবশ্যই নিজে ভালোভাবে জেনে বুঝে এখানে বিনিয়োগ করবেন বা কাজ করবেন। আশা করি কিভাবে কাজ করে এখন আপনি ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন।

ফরসেজ কি হালাল নাকি হারাম

অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন বা গুগলে সার্চ দিয়ে থাকেন যে ফরসেজ কি হালাল নাকি হারাম। তাহলে চলুন জেনে নিয়ে এবার এই বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত। আপনি হয়তো জানেন কিংবা জানেন না যে বিটকয়েন বা ক্রিপ্টোকারেন্সি পৃথিবীর সকল দেশে নি*ষিদ্ধ এবং এটি অবৈধ। আর ফরসেজ হলো ইথারিয়াম ক্রিপ্টোকারেন্সি ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম। ইথারিয়াম বা বিটকয়েন একই ধরনের ডিজিটাল কারেন্সি। এ সকল কারেন্সি নির্দিষ্ট কোন মালিকানা নেই, কোন প্রতিষ্ঠানও।

যার ফলে এখানে প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। আশা করি এখন আপনি হালকা ধারণা পেয়ে গেছেন যে forsage হালাল নাকি হারাম। এবারে আরেকটু ভালোভাবে আপনাকে বুঝিয়ে দিই। যে কোন ধরনের বিনিয়োগ কিন্তু ইসলামে হারাম। আর এ ধরনের অবৈধ ডিজিটাল অর্থ উপার্জন করা সম্পূর্ণ নি*ষিদ্ধ এবং হারাম। এ ধরনের টাকা দিয়ে আপনি যে খাবার খাবেন সে খাবারটিও হবে হারাম।

আর ইসলামে বলা হয়েছে হালাল খাবার খেতে। তাই এখানে স্পষ্ট বোঝা যায় ফরসেজ একদম হারাম মুসলমানদের জন্য। তাই আপনি যদি একজন প্রকৃত মুসলিম হয়ে থাকেন তাহলে বলবো ফরসেজ প্ল্যাটফর্মে না কাজ করাই ভালো। আর আপনি যদি টাকা ইনকামের নেশায় থাকেন তাহলে কাজ করতে পারেন এখানে প্রচুর অর্থ উপার্জন করা যায়। এখন তো বিষয়টি বুঝতে পারলেন হট শেষ কি হালাল নাকি হারাম।

ফরসেজ একাউন্ট খোলার নিয়ম

অনেকে এখন পর্যন্ত জানেন না যে ফরসেস একাউন্ট খোলার নিয়ম গুলো কি কি। এখন আমি আপনাদেরকে খরচ অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম এবং ভানুপুঙ্খভাবে বুঝিয়ে দেব তাহলে চলুন শুরু করা যাক। ফরসেজ একাউন্ট খোলার নিয়ম একদমই সোজা। আপনি প্রথমে গিয়ে গুগলে সার্চ দেবেন forsage.io লিখে তাহলে আপনার সামনে ফরসেজ মেইন ওয়েবসাইট চলে আসবে সেখান থেকে আপনি খুব সহজে সাইনআপ করে নিতে পারবেন।

তবে ফরসেজ একাউন্টে সাইন আপ করার আগে যে বিষয়গুলো আপনার জেনে রাখা অবশ্যই দরকার তা হল আপনার একটি টাস্ট ওয়ালেট থাকতে হবে। এবং সেখানে সামান্য পরিমাণ ডলার থাকতে হবে। ট্রাস্ট ওয়ালেট কি আপনি যদি না জেনে থাকেন তাহলে ইউটিউবে গিয়ে সার্চ দিয়ে দেখে নিবেন। আপনারটা আসতে কোয়ালিটির সামান্য পরিমাণ ডলার বলতে মিনিমাম ১৪ ডলারের মত থাকতে হবে যা বাংলাদেশী টাকায় ১৩০০ টাকার মতো। আর অবশ্যই আপনি একাউন্ট খোলার পর অ্যাকাউন্টে রেফার কোড বসাতে হবে।

আপনি শুধুমাত্র একবার বারো ডলার দিয়ে একাউন্ট খুলে নিলেই নিয়মিত ফরসেজ একাউন্টে কাজ করতে পারবেন। এবং প্রতিদিন একটি ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন। কেউ কেউ নতুন অবস্থাতেই এই অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় ২৫০ থেকে ৩০০ ডলারের মতো মাসে ইনকাম করে থাকেন। আশা করি আপনি ফরসেজ একাউন্ট খোলার নিয়ম এখন ভালোভাবে জানতে পেরেছেন এখন চাইলে নিজে নিজে একাউন্ট খুলতে পারবেন খুব সহজে।

Forsage এ কিভাবে কাজ শুরু করব

অনেকের কমন একটি প্রশ্ন হচ্ছে Forsage এ কিভাবে কাজ শুরু করব। আসলে অনেকের মধ্যে এই Forsage অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে ধারণা না থাকায় এ ধরনের প্রশ্ন করে থাকেন। তাহলে চলুন এখন আমরা Forsage এ কিভাবে কাজ শুরু করব তা জেনে নিব ভালো মতো। ফরসেজ এ কাজ করতে হলে অবশ্যই আপনাকে সর্বপ্রথম একাউন্ট খুলতে হবে forsage.io তে। অ্যাকাউন্ট খোলার পরে অবশ্যই একাউন্টে আপনার রেফারেল কোড বসাতে হবে।

আরো পড়ুনঃ উইন্ডোজ ১১ এর সেরা কিছু গোপন ফিচারগুলো জেনে নিন

কেননা এখানে ইনকামিং হবে আপনার রেফার কোড এর মাধ্যমে। আর একাউন্ট খোলার জন্য তো অবশ্যই আপনার টাস্ট ওয়ালেট নামে একটি ওয়ালেট থাকতে হবে যেখানে ১৪ ডলার লোড করে Forsage অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। একবারে বারো ডলার আপনি Forsage অ্যাকাউন্ট । দিয়ে খুলে নিলে আর কোন ডলার লোড করতে হবে না বরং এখান থেকে তখন ডলার ইনকাম হবে।

Forsage এ কিভাবে কাজ শুরু করবেন মূলত রেফারের মাধ্যমে। আপনি Forsage এ নিয়মিত সদস্য বাড়াবেন তাহলেই আপনার ইনকাম হবে নিয়মিত। আর আমরা জানি যে সদস্য বানানো কাজই হচ্ছে রেফারেল কাজ বা অ্যাফিলিয়েটিং কাজ। আশা করি Forsage এ কিভাবে কাজ শুরু করব এ বিষয়টি এখন বুঝতে পেরেছেন।

ফরসেজ থেকে ইনকাম

এখন আমরা জানবো কিভাবে ফরসেজ থেকে ইনকাম শুরু করা যায়। আপনার যদি একটি ফরসেজ অ্যাকাউন্ট থাকে। আর সেই একাউন্টে যদি ফরসেজ এর দুইটি ম্যাট্রিক্সের মধ্যে যেকোনো একটি ম্যাট্রিক্স এর সদস্যতা নেওয়া থাকে। তাহলে আপনি ফরসেজ থেকে ইনকাম করতে পারবেন। ফরসেজ যেহেতু একটি ব্লকচেইন প্ল্যাটফর্ম। আর এর কাজ মূলত রেফার করা সদস্য বাড়ানো সদস্য বাড়ানো ইত্যাদি।

আপনি যখন নিয়মিত সদস্য বাড়াতে থাকবেন তখন নিয়মিত ফরসেজ থেকে ইনকাম করতে পারবেন। আর ইনকামের অর্থ গিয়ে জড় হবে আপনার টাস্ট ওয়ালেটে তাই সে অর্থ হারিয়ে যাওয়ার বা মার যাওয়ার কোন ভয় নাই। আশা করি ফরসেজ থেকে ইনকাম কিভাবে ইনকাম করবেন বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন ভালো মতো।

forsage নিয়ে শেষ কথা

forsage তাহলে মূলত একটি বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান এখানে সর্বপ্রথম আপনাকে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং ১৪ ডলারের মত খরচ করতে হবে তাদের চার্জ সহ 15 ডলার পার হয়ে যাবে। এখানে একাউন্ট খোলার পর তাদের দুটি ম্যাট্রিক্স রয়েছে। ফরসেজ৩ ও ফরসেজ৪ মেট্রিক্স। ফরসেজ৩ অর্থ হল আপনি এখানে যা বিনিয়োগ করবেন তার তিন গুণ পাবেন। ফরসেজ৪ মানে হল আপনি যা বিনিয়োগ করবেন এখানে তার চার গুণ পাবেন।

forsage একাউন্টে আপনি রেফার করে যত সদস্য বাড়াবেন তার ওপর ভিত্তি করে নিয়মিত আপনি উপার্জন করতে থাকবেন। অন্যান্য বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্লক চেন প্ল্যাটফর্ম গুলোতে আপনি যার রেফারে ঢুকবেন শুধুমাত্র সেই ব্যক্তি লাভবান হয়। কিন্তু ফরসেজ একাউন্টে তার উল্টোটা আপনি যার রেফারে ঢুকবেন সেও অর্থ উপার্জন করবে এবং আপনিও অর্থ উপার্জন করবেন তার রেফারে ঢোকার মাধ্যমে।

তাই এখানে প্রচুর পরিমাণে লাভ আর লাভ শুধু। আপনি চাইলে আজ থেকেই forsage.io ১২ থেকে ১৫ ডলার দিয়ে একাউন্ট খুলে নিয়েই কাজ শুরু করে দিতে পারেন। আর আমার এই আর্টিকেলটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

Assalamu Alaikum! Hello world, I am Md. Hafijul Islam (mhihafijul). I am a Bangladeshi SEO expert. And I have been writing high quality Bengali content for a long time. I can write very nice SEO friendly articles. Along with that we do onpage seo, offpage seo and technical seo in proper guidelines. For which every article I write ranks on Google's fast page.

Sharing Is Caring:

Leave a Comment

error: Content is protected !!