রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র

প্রিয় পাঠকবৃন্দ আপনি হয়ত রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র এই লিখাটি পড়ে পোষ্ট টি পড়তে এসেছেন? আজকে আমি উপরোক্ত বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো তাই পোষ্টটি অবশ্যই মনযোগ দিয়ে পড়ুন। তাহলে আপনিও আজ থেকে জেনে যাবেন আপনার রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী আপনার চরিত্র কেমন? আজকে আমরা রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র সব কিছু জানবো এই পোষ্টের মাধ্যমে।

রক্তের গ্রুপ মানে হল মানুষের রক্তে থাকা কিছু প্রোটিন ও এন্জাইমের কোনো গ্রুপ বা প্রকার। এই গ্রুপগুলো রক্ত দাতা ও রক্ত গ্রহণকারীর মধ্যে ভিন্নভাবে প্রভাবিত হতে পারে। প্রতিটি মানুষের রক্তের গ্রুপ ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। তাহলে চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র।

Table of Contents

পোষ্ট সূচিপত্রঃ রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র

  •     ভূমিকা
  •     রক্তের গ্রুপ কি
  •     রক্তের গ্রুপ কয়টি
  •     দামি রক্তের গ্রুপ
  •     কোন রক্তের গ্রুপের মানুষ বেশি বুদ্ধিমান হয়
  •     কোন রক্তের গ্রুপ খারাপ
  •     রক্তের গ্রুপের নাম
  •     রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য
  •     A+ রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য
  •     A- রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য
  •     B+ রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য
  •     বি নেগেটিভ রক্তের বৈশিষ্ট্য
  •     AB+ রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য
  •     AB- রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য
  •     O+ রক্তের গ্রুপের মানুষ কেমন
  •     O- রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য
  •     উপসংহার

ভূমিকা

রক্তের গ্রুপ (Blood Group) মানব রক্তকণিকারদের তিনটি প্রধান শ্রেণীতে বিভক্ত করা হয়ে থাকে। রক্তের গ্রুপগুলি, যা রক্তের প্রকার হিসাবেও পরিচিত, বিভিন্ন সিস্টেম ব্যবহার করে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়, তবে সবচেয়ে সুপরিচিত এবং বহুল ব্যবহৃত সিস্টেম হল ABO সিস্টেম।

ABO সিস্টেম ছাড়াও, আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ রক্তের গ্রুপ সিস্টেম হল Rh সিস্টেম। একসাথে, ABO এবং Rh সিস্টেমগুলি আটটি প্রধান রক্তের করে থাকে। রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় খুবই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জানবো আমরা নিচে।

রক্তের গ্রুপ কি

প্রতিটি জীবিত মানুষ এর শরীরে জন্মগত সূত্রে রক্ত থাকে। তবে প্রতিটি মানুষের শরীরে রক্তের ধরন এক হয় না। বিজ্ঞানীদের মতে রক্তের উপাদানগত বৈশিষ্ট্যের বিচারে রক্তকে কয়েকটি শ্রেণিতে ভাগ করা যায়। রক্তের এই ভাগকার শ্রেণিবিন্যাসকে (Blood Group) ব্লাড গ্রুপ বলা হয়। জীববিজ্ঞানী কার্ল ল্যান্ডস্টেইনার প্রথম ১৯০১ খ্রিষ্টাব্দে মানুষের রক্তের শ্রেণিবিন্যাস করেন। রক্তের এই শ্রেণীবিন্যাসকে সংক্ষেপে ABO ব্লাড গ্রুপ বা ব্লাড গ্রুপ বলা হয়। সাধরাণত এ্যান্টিবডি ও এ্যান্টিজোনের উপর ভিত্তি করে মানুষের রক্তকে ৪ ভাগে বিভক্ত করা যায়।

যথা: এ, বি, এবি এবং ও। প্রত্যেকটি গ্রুপকে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায়। এক হলো (+) আরেকটি হলো (-)। সুতরাং বিভিন্ন মানুষের শরীরে মোট ৮ গ্রুপের রক্ত পাওয়া যায়। এছাড়াও আমরা জানবো রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র কিরকম হয়। জানতে হলে অবশ্যই লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে।

রক্তের গ্রুপ কয়টি

আমরা উপরেই জেনে গেলাম যে বিভিন্ন মানুষের দেহে ভিন্ন ভিন্ন রক্তের গ্রুপ থাকে। প্রথমত এন্টিবডি ও এনটিজনের উপর ভিত্তি করে মানুষের রক্তেককে চার ভাগে ভাগ করা যায়। রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় সেটি জানবো আমরা এই লেখার মাধ্যমে।

আরো পড়ুনঃ বাংলা ও ইংরেজি মাস অনুযায়ী রাশি কোন রাশির মেয়েরা ভালো জেনে নিন

প্রত্যেকটি গ্রুপকে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায়। এক হলো (+) আরেকটি হলো (-)। উপরোক্ত বিষয় থেকে এখন বলা যায় যে মানুষদের শরীরে মোট আট গ্রুপের রক্ত থাকে। তার মধ্যে চারটি গ্রুপ হল পজেটিভ এবং চারটি গ্রুপ হল নেগেটিভ। এখন জেনে নেওয়া যাক রক্তের গ্রুপগুলোঃ

  1.     এ+ পজেটিভ, A+
  2.     এ- নেগেটিভ, A-
  3.     বি+ পজেটিভ, B+
  4.     বি- নেগেটিভ, B-
  5.     এবি+ পজেটিভ, AB+
  6.     এবি- নেগেটিভ, AB-
  7.     ও+ পজেটিভ, O+
  8.     ও- নেগেটিভ, O-

আশা করি এবার জেনে গেছেন রক্তের গ্রুপ কয়টি। আপনি কিন্তু ভুলে যাবেন না আমাদের জানার মেইন বিষয় হল রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র। চলুন আমরা এবার সেই বিষয়ে নিচে আলোচনা শুরু করি। অবশ্যই আমাদের এই পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়বেন কিন্তু।

দামি রক্তের গ্রুপ

আপনারা অনেকেই প্রশ্ন করে থাকেন যে, পৃথিবীতে সবচেয়ে দামি রক্তের গ্রুপ কোনটি? আপনারা হয়তো আবার হয়তো অনেকে বলে থাকেন সবচেয়ে দামি রক্তের গ্রুপ হল ও- নেগেটিভ, O-, “বি- নেগেটিভ, B-, বাএবি- নেগেটিভ, AB-, কিন্তু আপনাদের ধারণা ভুল পৃথিবীতে সবচেয়ে দুর্লভ ও দামি ব্লাড গ্রুপ টি হলো Bombay রক্তের গ্রুপ। ১৯৫২ সালে ডঃ ওয়াইএম বিহ্যান্ড Bombay মানে মুম্বাই শহরের কে.ই.এম. নামের একটি হাসপাতালে

একটি রোগীর পরীক্ষা নিরীক্ষা করছিলেন। তার রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা করে দেখলেন তার রক্তের গ্রুপ সবার থেকে ভিন্ন। সাধারণত মানুষের যে রক্তের গ্রুপগুলো হয়ে থাকে তার কোনটার সাথে মিল ছিল না সেই ব্যক্তির রক্তের গ্রুপের। তাই বলা যায় পৃথিবীর সবচেয়ে দামি রক্তের গ্রুপ হল Bombay মানে মুম্বাই।তবে এই লেখায় আমাদের জানার মূল বিষয় হচ্ছে রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র ভুলে যাবেন না কিন্তু।

কোন রক্তের গ্রুপের মানুষ বেশি বুদ্ধিমান হয়

অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন যে কোন রক্তের গ্রুপের মানুষ বেশি বুদ্ধিমান হয়। যদিও সব রক্তের গ্রুপের মানুষই বুদ্ধিমান মানুষ। তবে এ পজেটিভ এবং ও পজেটিভ গ্রুপের মানুষ বেশি বুদ্ধিমান হয়। কেননা এ পজেটিভ মানুষদের মেধা খুবই তীক্ষ্ণ হয় থাকে তাই তারা সকল বিষয় খুব সহজে বুঝতে পারেন।

স্বাস্থ্য বিজ্ঞানীদের মতে পৃথিবীর সবচেয়ে বুদ্ধিমান মানুষ হচ্ছে এ পজেটিভ রক্তের গ্রুপের মানুষ। আর এরপরের স্টেপে রয়েছে ও পজেটিভ রক্তের গ্রুপের মানুষ। তাই এখানে স্পষ্টভাবে বলা যায় যে এ পজেটিভ এবং ও পজেটিভ রক্তের গ্রুপের মানুষ বেশি বুদ্ধিমান হয়।

কোন রক্তের গ্রুপ খারাপ

কোন রক্তের গ্রুপ সবচেয়ে বেশি খারাপ সেটি সঠিকভাবে বলা যাবে না। কেননা প্রতিটি রক্তের গ্রুপেরই মানুষদের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। শুধুমাত্র এ রক্তের গ্রুপের উপর নির্ভর করে। আমরা রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র বিষয়টি জানবো কোন রক্তের গ্রুপ খারাপ এটির পরে। তাহলে চলুন কোন রক্তের গ্রুপ খারাপ সেটি আগে জেনে নেওয়া যাক।

“এ” রক্তের গ্রুপের মানুষেরা বেশি মানসিক চাপ সহজে মোকাবেলা করতে পারেন না। ফলে এই গ্রুপের রক্তধারী ব্যক্তিদের শরীরে অতিরিক্ত এড্রেনালিন নিঃসরণ ঘটে। সে কারণে তারা তাদের সিস্টেমে থাকা কোন পার্টি সেল পরিষ্কার করতে পারেন না। যার ফলে এই গ্রুপের মানুষরা মানসিক চাপ মোকাবেলা করতে পারেন না সহজে। সে কারণে তাদেরকে মানসিক অবসাদের জন্য নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে মনো চিকিৎসা দেওয়া হয়ে থাকে।

“বি” তোমায় দেখতে গ্রুপের রক্ত যাদের রয়েছে তাদের অধিক পরিমাণে উপকারী ব্যাকটেরিয়া থাকে। যার জন্য বি রক্তের গ্রুপের মানুষেরা ভাগ্যবান। তাদের হজম প্রক্রিয়া শক্তিশালী রাখতে এবং বিপদজনক ব্যাকটেরিয়াদের দূর করতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে বি গ্রুপের রক্তধারীদের ব্যাকটেরিয়া গুলো। যার জন্য ও কিংবা এই গ্রুপের রক্তধারীদের চেয়ে ৫০ হাজার গুণ বেশি ভালো ব্যাকটেরিয়া থাকে বি গ্রুপের রক্তধারী ব্যক্তিদের।যার জন্য বি গ্রুপের রক্তধারী ব্যক্তিদের হজম শক্তি বেশি হয় এবং এদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অধিক বেশি শক্তিশালী হয়ে থাকে।

আরো পড়ুনঃ দুই মাস মাসিক না হওয়ার কারণ প্রতিকারসহ জেনে নিন

“এবি” রক্তের গ্রুপের ব্যক্তিদের স্মৃতির দুর্বলতা দেখা দেয়। শেষ বয়সে গিয়ে তারা আর তাদের স্মৃতিশক্তি ধরে রাখতে পারে না ঠিকমতো। অনেকেই আবার স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলে। বিজ্ঞানীদের গবেষণামতে যাদের রক্তের গ্রুপ এবি গ্রুপের জ্ঞানশক্তি খুবই কম। এদের রক্তের জমাট বাঁধা ও রক্তের প্রোটিন জনিত কিছু সমস্যার কারণে স্মৃতিশক্তি লোপ পায় বলে জানা গেছে। তবে এর সঠিক ব্যাখ্যা এখনো কেউ দিতে পারেনি কিংবা জানা যায়নি। এবি গ্রুপের রক্তের লোকদের হার্টের রোগ ও হিদ্র ঘর ঝুকি প্রবল।

“ও” রক্তের গ্রুপ এর লোকদের অন্যান্য গ্রুপের লোকদের চেয়ে আলচারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকে অনেক বেশি থাকে। এছাড়াও ও রক্তের গ্রুপের ব্যক্তিদের পাকস্থলীর আনসার হওয়ার ঝুঁকিও বেশি থাকে। আশা করি আপনারা বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন তাহলে চলুন এবারে জেনে নেওয়া যাক পরবর্তী বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত। তারপরেই আমরা জানবো রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র বিষয়ে।

রক্তের গ্রুপের নাম

আমরা উপরের আলোচনা থেকে জেনে গেছি রক্তের গ্রুপ কি? এবং রক্তের গ্রুপ কত ধরনের হয়ে থাকে? এবং রক্তের গ্রুপের কি কি নাম হয়ে থাকে। তারপরে চলুন আরো একবার জেনে নেওয়া যাক রক্তের গ্রুপের নাম গুলো। প্রথমত রক্তের গ্রুপকে ৪ ভাগে ভাগ করা যায়। ১ হল এ গ্রুপ, ২ হল বি গ্রুপ, ৩ হল এবি গ্রুপ এবং ৪ হল ও গ্রুপ। এই চারটি গ্রুপকে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায়। এক হলো (+) আরেকটি হলো (-)। তাহলে চারটি গ্রুপ কে ভাগ করে আমরা আটটি গ্রুপ পাব। তা হলঃ

  •     এ+ পজেটিভ, A+
  •     এ- নেগেটিভ, A-
  •     বি+ পজেটিভ, B+
  •     বি- নেগেটিভ, B-
  •     এবি+ পজেটিভ, AB+
  •     এবি- নেগেটিভ, AB-
  •     ও+ পজেটিভ, O+
  •     ও- নেগেটিভ, O-

রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য

আমরা জানি যে মানুষদের শরীরে আটটি গ্রুপের রক্ত চলাচল করে। জাপানের বিজ্ঞানীদের মতে মানুষদের ব্যক্তিত্ব ও চরিত্র অনেকটাই নির্ভর করে রক্তের গ্রুপের উপরে। । আর এই নির্ভর করা কেই রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য বলা হয়। আপনারা যেহেতু প্রথমে জেনেছেন যে আমার এই লেখাটি রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র কেমন হবে তা বলে দিবে সেই ব্যক্তির রক্তের গ্রুপ। তাহলে চলুন আমরা এবারে একে একে জেনে নেয় যে কোন রক্তের গ্রুপের মানুষদের বৈশিষ্ট্য কি রকম হয়ে থাকে।

A+ রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য

পৃথিবীতে সবচেয়ে জ্ঞানী মানুষের রক্তের গ্রুপ হলো A+ পজেটিভ। এর পরেই রয়েছে O+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা। এবার ফাইনালি আমরা চলে এসেছি আমাদের কাঙ্ক্ষিত সেই রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র লেখাটিতে এখন আমরা জানবো এ+ পজেটিভ, A+ রক্তের গ্রুপের মানুষেরা সাধারণত প্রকৃতিপ্রেমী হয়ে থাকে। A+ রক্তের গ্রুপের মানুষেরা কর্মজীবনে একজন

আরো পড়ুনঃ বাংলা ও ইংরেজি মাস অনুযায়ী রাশি কোন রাশির মেয়েরা ভালো জেনে নিন

দক্ষ চাকুরে এবং যেকোনো বিষয় নিয়ে খুঁতখুঁতে স্বভাবের হয়ে থাকে। এরা অন্তর্মুখী, আত্মকেন্দ্রিক, নিয়মতান্ত্রিক, সৎ, শান্ত, সুবিচারক ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন স্বভাবের হয়ে থাকে। তারা সর্বদা পারফেক্ট থাকার এবং চলার চেষ্টা করেন। এ+ পজেটিভ, a+ রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য A+ রক্তের গ্রুপের ব্যক্তিদের মস্কিষ্কে কর্টিসল হরমোন স্বভাবতই বেশি নিঃসরণ হয়ে থাকে। সে কারণে তারা সব সময় এক ধরনের মানসিক চাপের মধ্যে থাকেন।

কখনো কখনো মানুষদের সাথে কিংবা পরিচিতজনদের সাথেও খারাপ ব্যবহার করে থাকেন। তাদের এ ধরনের আচরণের জন্য যোগব্যায়াম বা চিত্রকর্মের মতো কিছু শিথিল কাজকর্মের মধ্যে থাকা খুবই দরকার। তারা যে কোনো কাজ করার পূর্বে ২ বার চিন্তা-ভাবনা করেন। তারা সহজে যে কাউকে বিশ্বাসও করতে দ্বিধাবোধ করেন এবং অনেককেই কখনো বিশ্বাস করতে পারেন না।

A- রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য

পৃথিবীতে শতকরা ৩৪ ভাগ জন গোষ্ঠীর রক্তের গ্রুপ এ+ পজেটিভ, A+। এ- নেগেটিভ, A- ব্লাড গ্রুপের লোক সংখ্যা শতকরা ৬ ভাগ। এ- নেগেটিভ, A- ব্লাড গ্রুপের মানুষ গোছগাছ প্রিয়, কিছুটা স্বার্থপর, চালাক, দক্ষ চাকুরে এবং খুঁতখুতে স্বভাবের হয়ে থাকেন, এ- নেগেটিভ, A- রক্তের গ্রুপের লোকেরা আত্মকেন্দ্রিক, সুবিচারক, শান্ত, নিয়মতান্ত্রিক, বিশ্বস্ত, নিয়মানুবর্তী ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন স্বভাবের হয়ে থাকেন।

পরিশ্রমের মাধ্যমে সাফল্য অর্জন করায় এঁদের জীবনের মূলমন্ত্র। যত বড় কঠিন কাজই এঁদের দেওয়া হোক না কেন। তারা কখনও সে কাজ থেকে পিছুটান নেন না বা বা পিস পা হন না। অত্যন্ত বুদ্ধিমান হন এই রক্তের গ্রুপের লোকেরা। আমরা এখন রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় এই পয়েন্টেই রয়েছি। তাহলে এবার চলুন বি গ্রুপের বৈশিষ্ট্য জেনে নেই।

B+ রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য

আপনারা জেনে অবাক হবেন যে বি পজেটিভ রক্তের গ্রুপকে গরুর রক্ত বলা হয় থাকে। বি+ পজেটিভ, B+ ব্লাড গ্রুপের মানুষেরা স্বাধীনচেতনা, স্বাস্থ্যবান মনোযোগী, সরল প্রকৃতির, মেধাবী, নমনীয়তা, দক্ষতা সম্পন্ন, বাস্তববাদী, পরিকল্পনা করতে সক্ষম, রোমান্টিক ও আবেগপ্রবণ হয়ে থাকে।

আরো পড়ুনঃ দুই মাস মাসিক না হওয়ার কারণ প্রতিকারসহ জেনে নিন

এছাড়াও এরা দয়ালু এবং সবার জন্য মায়া বেশি থাকে এদের। B+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা ভালো মানুষ হয়ে থাকেন। যারা তাদের সঙ্গে প্রেম কিংবা বিয়ে করেন তারা অনেক ভাগ্যবান। কারণ তারা তাদের সঙ্গীকে অনেক বেশি সম্মান করার পাশাপাশি খুব যত্ন নেন। তারা তাদের সঙ্গীকে সব সময়ের জন্য বিশেষ কিছু মনে করেন।

  •     বি+ পজেটিভ, B+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা লোকেরা বেশি আবেগপ্রবণ।
  •     বি+ পজেটিভ, B+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা অন্যদের সাহায্য করতে পিছু পা হননা।
  •     একজন অন্যের জন্য ত্যাগও করতে পারেন সবকিছু।
  •     তারা তাদের যেকোনো সম্পর্ককে খুবই গুরুত্ব দিয়ে থাকেন।
  •     বি+ পজেটিভ, B+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা খুব সুন্দর এবং স্মার্ট হন।
  •     তবে বিজ্ঞানীদের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, বি+ পজেটিভ,
  •     B+ রক্তের গ্রুপের ব্যক্তিদের ডায়াবেটিসহওয়ার ঝুঁকি 35% বেশি থাকে।

বি নেগেটিভ রক্তের বৈশিষ্ট্য – B- রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য

পৃথিবীতে B ব্লাড গ্রুপ শতকরা ৯ ভাগ এবং এর মধ্যে ব্লাড গ্রুপ বি+ পজেটিভ, B+ এবং বি- নেগেটিভ, B- সেক্ষেত্রে ক্ষেত্রে এই হার মাত্র ২ ভাগ। B- ব্লাড গ্রুপের মানুষেরা অপরিনামদর্শী, স্বার্থপর, অগোছালো, অলস প্রকৃতির, কোন কিছুর প্রতি দায়িত্বজ্ঞানহীন, অবিবেচক ও অসংযমী, আবেগি এবং অনুভূতি প্রবণ হয়ে থাকে।

বি নেগেটিভ ব্লাড গ্রুপের মানুষেরা প্রবণতাকে সঠিক মনে করে। এছাড়াও বি নেগেটিভ রক্তের গ্রুপের মানুষগুলো শুধু নিজেদের নিয়েই ভাবে, তাই এর অধিকাংশ স্বার্থপর। বি নেগেটিভ গ্রুপের লোকেরা কাউকে সাহায্য করতে বিশ্বাস করে না। আমরা এখন রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় এই পয়েন্টেই রয়েছি। এবারে চলুন এবি রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য জেনে নেওয়া যাক।

AB+ রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য

এবি পজেটিভ (AB+) রক্তের গ্রুপের মানুষকে সার্বজনীন প্রাপক বা গ্রহীতা বলা হয়। কেন না তারা সকল গ্রুপ থেকে রক্ত গ্রহণ করতে পারেন। কিন্তু এরা অন্য কোনো গ্রুপকে রক্ত দিতে পারবেন না। শুধুমাত্র নিজেদের AB+ গ্রুপকে দিতে পারে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের গবেষণা মতে এবি পজেটিভ (AB+) রক্তের গ্রুপের মানুষরা সাধারণত একটু ব্যতিক্রমধর্মী হয়ে থাকেন। এবি পজেটিভ (AB+) রক্তের গ্রুপের লোকেরা ভদ্রলোক, বুদ্ধিমান এবং যত্নশীল হয়ে থাকেন। এবি পজেটিভ (AB+) রক্তের গ্রুপের গ্রুপের মানুষদের সহজে বোঝা যায় না,

কারণ তাদের স্বভাব কখনই এক হয় না। এই রক্তের গ্রুপের লোকেরা যদি কোনো বিষয়ে তাদের মন একবার তৈরি করে তবে তাদের সেটি থেকে ফেরানো যায়না কিংবা পরিবর্তন হয় না। স্বল্প সময়ে এবি পজেটিভ (AB+) রক্তের গ্রুপের মানুষের প্রকৃত চিন্তা চেতনা ও মানসিকতাকে জানা যায় না। এবি পজেটিভ (AB+) রক্তের গ্রুপের মানুষ সুস্থ থাকে ৬০ বছর পর্যন্ত। রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র তা জানা শেষের পথে।

AB- রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য

এবি নেগেটিভ (AB-) রক্তের গ্রুপের লোকেরা বেশি বুদ্ধিমান এবং তাদের মন খুব দ্রুত চলাচল করে, তারা সেই সকল জিনিসগুলো বুঝে ফেলে সহজে যেই জিনিসগুলো সাধারন লোকেরা উপেক্ষা করে। এবি নেগেটিভ (AB-) রক্তের গ্রুপের লোকেরা সাদাসিধা, সরল সোজা হয়ে থাকে। AB-গ্রুপের লোকদের অনেক বন্ধু থাকে। তারা যে কাউকে বন্ধু বানাতে পারে খুব সহজে। তবে AB-গ্রুপের লোকেরা তাড়াতাড়ি কাউকে বিশ্বাস করে বসে না। AB-গ্রুপের লোকেরা কোনো সিদ্ধান্ত নিলে সহজে কিংবা বারবার পরিবর্তন হয় না তাদের সিদ্ধান্ত অটুট থাকে।

O+ রক্তের গ্রুপের মানুষ কেমন

আমাদের এই রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র লিখাটির শেষ অংশ এটি। তাহলে চলুন এবার জেনে নেই। ও নেগেটিভ O-নেগেটিভ রক্তের গ্রুপ হল খুবই  দুর্লভ প্রকৃতির গ্রুপ। O-নেগেটিভ রক্তের গ্রুপ  যা প্রতি ৬০,০০,০০০ জনের ভিতরে ১ জনের শরীরে থাকে। বিজ্ঞানীদের গবেশনা  মতে, এটি হল পৃথিবীর ‘দুর্লভ’  রক্তের গ্রুপ। যার জন্য O-নেগেটিভ রক্তের গ্রুপটি  হলো পৃথিবীর গোল্ডেন ব্লাড নামে পরিচিত।

O+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা বাকপটু, উচ্চাকাঙ্ক্ষী, রোমান্টিক, বাস্তববাদী, স্বাস্থ্যবান, বুদ্ধিমান, স্বচ্ছ দৃষ্টি সম্পন্ন এবং কোনো যে কোন বিষয়ের উপর গভীর মনোযোগী হয়ে থাকেন। O+ রক্তের গ্রুপের ব্যাক্তিরা সাধারণত নিজেকে ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তির মতামতকে খুব একটা গুরুত্ব দেন না এবং গ্রাহ্য করেন না। সহজ করে বলতে গেলে বলা যায় O+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা প্রণয়োদ্দীপ, কুল, হট ঠান্ডা আবার

আরো পড়ুনঃ কিডনি বিক্রি হাসপাতাল বাংলাদেশ বাংলাদেশে কিডনির দাম কত জেনে নিন

গরম মেজাজের হয়ে থাকে। স্বভাবগতভাবে O+ রক্তের গ্রুপের মানুষ বন্ধুত্বপূর্ণ প্রকৃতির হযয়ে থাকে। তাদের মন অত্যন্ত স্বচ্ছ হয়ে থাকে। O+ রক্তের গ্রুপের সঙ্গে থাকা বসবাসকারীরা লোকজন কখনও বিরক্ত হন না। O+ রক্তের গ্রুপের মানুষ খুবই ইতিবাচক এবং আত্মবিশ্বাসী হয়ে থাকেন। এছাড়াও বলা হয়ে থাকে O+ রক্তের গ্রুপের লোকেরা অন্যদের সাহায্য করতে বেশি পছন্দ করেন। তাদের মন

আয়নার মতো স্বচ্ছ ও পরিষ্কার এবং তারা অন্যেদের সাহায্যে তাদের জীবন কাটাতে পারে। তারা খুব মজার মানুষ এবং শান্ত প্রকৃতির হয়ে থাকেন। তবে তারা যে কোন ধরনের নতুন ধারণাকে সহজে গ্রহণ করতে সক্ষম হয় না। আশা করি বিষয়টি বুঝতে পেরেছে। সেই সাথে মনে করিয়ে দেই আপনি রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র সম্পর্কে তথ্য জানতে এসেছেন।

O- রক্তের গ্রুপের বৈশিষ্ট্য

যাদের রক্তের গ্রুপ O- তারা খুবই আত্মবিশ্বাসী, ঠাট্টাবাজ, কর্মঠ, দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, দুর্দান্ত স্ট্যামিনা এবং সর্বদা হাসি-খুশি প্রকৃতির হয়ে থাকেন। O- রক্তের গ্রুপের মানুষের উপর আপনি খুব সহজেই নির্ভর করতে পারেন। তবে O- রক্তের মানুষেরা শুধু তাদের ভালো লাগার মানুষের সঙ্গে সবচেয়ে বেশি কথা বলেন এবং মেলামেশা করে থাকেন। তারা বেশির ভাগ সময় অন্যের প্রতি উদাসীন হয়ে থাকেন এবং নিজেকে নিয়ে বেশি চিন্তা ভাবনা করেন। তারা তাদের কাজ করতে কখনো আলসেমীবোধ করেন না। অনেক বেশি কর্মঠ মানুষ হয়ে থাকেন।

O- রক্তের গ্রুপের লোকেরা সত্যবাদীদের পছন্দ করেন। অন্যান্য রক্তের গ্রুপের মানুষের তুলনায় O- রক্তের গ্রুপের মানুষরা চারিত্রিক ভাবে অনেক অবিচলিত। তারা যদি কিছু করবেন বলে ঠিক করে, তাহলে সেই লক্ষ্যে তারা দৃঢ় ও প্রবল হয়ে থাকেন। আপনার O- রক্তের গ্রুপের লোকেরা সৎ, আশাবাদী এবং উদ্দীপনায় ভরপুর। O- রক্তের গ্রুপের লোকেরা কোন কাজ যদি অর্থহীন বলে মনে করেন, তাহলে মুহূর্তে সে কাজ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন। তারা অতীতের দুঃখজনক ঘটনা সম্পর্কেও বিন্দুমাত্র নিরাশ হন না।

O- রক্তের গ্রুপের লোকেরা অতীত থেকে শিক্ষা নিতে বেশি ভালোবাসেন এবং তাদের চিন্তাভাবনা খুবই সংকীর্ণ। O- রক্তের গ্রুপের লোকেরা অন্যদের সম্পর্কে খুব বেশি চিন্তা ভাবনা করেন না। কারণ তারা নিজেদের ছাড়া অন্যের কথা চিন্তা করে না। O- রক্তের গ্রুপের মানুষগুলো কোনো রকমের উদ্দীপনা ছাড়াই কথা বলে, তাই তারা বেশিভাগ সমালোচনার শিকার হন। তাহলে চলুন এবার রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র সম্পর্কে শেষ অংশটুকু পড়ে নেই।

লেখকের শেষ কথাঃ রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র নিয়ে

প্রিয় পাঠক বৃন্দ আশা করি আমার এই লিখাটি পড়ে আপনি অনেক কিছু জানতে পেরেছেন। আজকে আমরা রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় কোন মানুষের চরিত্র বিস্তারিত অনেক কিছু জেনে গেলাম। এখানে আরো অনেক কথা রয়ে গেছে যা আমি আপনাদের পরবর্তী  আরেকটি লিখার মাধ্যমে তুলে ধরবো।

আপনারা যদি এই বিষয়টি নিয়ে অনেক বেশি আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাতে পারেন। রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী মানুষের বৈশিষ্ট্য কেমন হয় এই লিখাটি সম্পূর্ণরূপে ১০০ তে ১০০ সত্য এমনটি কিন্তু নয়। অনেকের রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী তারা ভিন্ন প্রকৃতির ভিন্ন বৈশিষ্ট্যের মানুষ হয়ে থাকে।

Assalamu Alaikum! Hello world, I am Md. Hafijul Islam (mhihafijul). I am a Bangladeshi SEO expert. And I have been writing high quality Bengali content for a long time. I can write very nice SEO friendly articles. Along with that we do onpage seo, offpage seo and technical seo in proper guidelines. For which every article I write ranks on Google's fast page.

Sharing Is Caring:

Leave a Comment

error: Content is protected !!